আজ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নির্বাচন কমিশন বহু নির্বাচন অত্যন্ত সফলভাবে করেছে: তথ্যমন্ত্রী

Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক,
বিএনপির দাবি উড়িয়ে দিয়ে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, কোনো অন্তর্বর্তী সরকারের অধীনে নয়, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনের অধীনেই আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশন এর আগে বহু নির্বাচন অত্যন্ত সফলভাবে সম্পন্ন করেছে। সুতরাং সংবিধান অনুযায়ীই আগামী নির্বাচন হবে।

সচিবালয়ে আজ সোমবার বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) ‘বিএসআরএফ বার্তা’র মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নামার আহ্বান জানিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে হাছান মাহমুদ এসব কথা বলেন।
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির নেতারা সাড়ে ১২ বছর ধরে এই দাবি করে আসছেন এবং জনগণকে আহ্বান জানিয়ে আসছেন। কিন্তু জনগণ তো তাঁদের আহ্বান সাড়া দেয়নি। সাড়া দেওয়ার কোনো কারণও নেই। বাংলাদেশে সংবিধান অনুযায়ী আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধান অনুযায়ী বর্তমান সরকারই নির্বাচনকালীন সরকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে।

‘নির্বাচন কখনো সরকারের অধীনে হয় না, নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। যখন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী যারা নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তাঁদের চাকরি নির্বাচন কমিশনের হাতে ন্যস্ত হয়। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সরকার একজন পুলিশ কনস্টেবলও বদলি করতে পারে না। নির্বাচন কমিশন এর আগে বহু নির্বাচন অত্যন্ত সফলভাবে করেছে। সে জন্য বিএনপিকে বলব, এই ধরনের ফাঁকা বুলি আউড়িয়ে কোনো লাভ হবে না। সংবিধান অনুযায়ী আগামী নির্বাচন হবে।’

বাংলাদেশ সরকার চাইলে আগামী জাতীয় নির্বাচনে জাতিসংঘ সহায়তা দিতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত সংস্থাটির আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সেপ্পো। এ বিষয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অত্যন্ত শক্তিশালী। বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনের নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য কারও সহযোগিতার দরকার আছে বলে আমি মনে করি না। কারণ এর আগে নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু ও স্বচ্ছভাবে অনেক নির্বাচন করেছে। বাংলাদেশ সোমালিয়া কিংবা ইথিওপিয়া নয়, যেখানে নির্বাচন করতে জাতিসংঘের সহায়তা লাগবে। সেখানে পর্যবেক্ষণ বা পর্যবেক্ষকের বিষয়টি ভিন্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     সম্প্রতি প্রকাশিত আরো সংবাদ