আজ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনলে জনগণ হাসে: সেতুমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:

গণ-অভ্যুত্থানের বস্তুগত দিক এখন দেশে নেই বলে মন্তব‌্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, দেখতে দেখতে সরকারের ১২ বছর চলে গেলো, কিন্তু আন্দোলন হবে কোন বছর? জনগণও এখন তাদের আন্দোলনের কথা শুনলে হাসে।

শনিবার (২ জানুয়ারি) বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)_এর সঙ্গে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সেতুমন্ত্রী এই মন্তব‌্য করেন।

ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন।

বিএনপি নতুন বছরে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন করার ঘোষণা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির রাজনৈতিক কৌশলে দেশ ও জনগণের স্বার্থ প্রাধান্য পাচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের নতুন বছরে রাজনীতি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অধিকতর সুগঠিত ও স্মার্ট একটা দল গড়ে তোলা হবে। দলের ভেতরে শৃঙ্খলা আরও মজবুত করা হবে। তিনি বলেন, সারাদেশে যে সব জেলা ও মহানগরে কমিটি হয়নি, সে সব এলাকায় সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হবে। বিতর্কিতরা যেন দলের নেতৃত্বে আসতে না পারেন, সে বিষয়ে দল সচেষ্ট থাকবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, নতুন বছরে সড়ক ও মহাসড়কে শৃঙ্খলা ফিরাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের যত্নবান হতে হবে। যাত্রীদের সুরক্ষায় যা যা করা দরকার, তা করতে হবে।

বিআরটিএ’তে দালালের দৌরাত্ম‌্য দূর করতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, দালালদের সঙ্গে কারও কারও যোগসাজশ আছে, তা থেকে তাদের বেরিয়ে আসতে হবে। তিনি আরও বলেন, সড়কে ৩ চাকার মোটরযান বন্ধ করতে হবে। মোটরযান নির্মাণের কারখানাগুলোও বন্ধ করতে হবে।

মালিক-শ্রমিকদের আবারও স্মরণ করে দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, গাড়িগুলোতে যত আসন, তত সিট অবশ্যই মানতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন তিনি।

এই সময় বিআরটিএ কার্যালয়ে ভার্চুয়ালি উপস্থিত ছিলেন সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, বিআরটিএ-এর চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     সম্প্রতি প্রকাশিত আরো সংবাদ