রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

সৎ পথে ফিরে আসুন নইলে পরিণতি হবে ভয়াবহ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কক্সবাজার প্রতিনিধি:
দেশের সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকায় সক্রিয় জলদস্যু ও অস্ত্র তৈরির কারিগরদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল। তিনি বলেন, দস্যুতা ছেড়ে সৎ পথে ফিরে আসুন। আর যারা এখনো নদী বা সাগরে থাকতে চান তাদের পরিণতি ভয়াবহ হবে।

শনিবার (২৩ নভেম্বর) সকাল সোয়া ১১টার দিকে কক্সবাজার জেলা পুলিশের আয়োজনে ‘আত্মসমর্পণ’ অনুষ্ঠানে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি। জেলার মহেশখালীর কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের মাঠে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যারা আত্মসমর্পণ করেছে তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে সরকার সহযোগিতা করবে। আর যারা এখনো নদী বা সাগরে থাকতে চান তাদের পরিণতি ভয়াবহ হবে। তাদের যারা সহযোগিতা করছেন তাদেরও কঠিন শাস্তি হবে।

অনুষ্ঠানের গেস্ট অব অনার পুলিশের আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, বাংলাদেশের মাটিতে জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও অপরাধীর স্থান হবে না। যে কোনো সময় ‘৯৯৯’ নম্বরে কল করে সহায়তা কিংবা অভিযোগ জানাবেন। অপরাধী যেই হোক ছাড় দেওয়া হবে না।

এ দিন কক্সবাজার জেলার সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকার ৯৫ জন তালিকাভুক্ত জলদস্যু, অবৈধ অস্ত্রধারী ও অস্ত্র তৈরির কারিগর আত্মসমর্পণ করেন। তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়। পরে তাদের অস্ত্র আইনের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন—কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের সংসদ সদস্য জাফর আলম, কক্সবাজার-২ (কুতুবদিয়া-মহেশখালী) আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর মহেশখালীতে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-গোলাবারুদসহ ৪৩ জলদস্যু আত্মসমর্পণ করে। তারা জনপ্রতি এক লাখ টাকা করে সরকারি আর্থিক অনুদান পেয়েছেন। তারা সবাই এখন স্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন। এছাড়া গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ইয়াবা ও অস্ত্রসহ টেকনাফে আত্মসমর্পণ করে ১০২ জন ইয়াবা কারবারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
themesbatulpar4545
%d bloggers like this: