বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১৭ পূর্বাহ্ন

নিজের বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে মুখ খুললেন হুইপ সামশুল হক

রাজনীতি ডেস্ক :
জাতীয় পার্টি ও বিএনপি হয়ে আওয়ামী লীগে এসেছেন চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া আসনের এমপি ও সংসদে সরকারি দলের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী – এমন অভিযোগ তুলেছেনএকই দলের নেতা দিদারুল আলম চৌধুরী।

এ ছাড়া চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের ওই নেতাকে নিয়ে ‘চোয়ার মারি দাঁত ফেলাই দিইয়ুম’- এমন ‘হুমকি’র একটি বিষয়ও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

তবে এসব অভিযোগের ব্যাপারে হুইপ সামশুল হক চৌধুরী ও তার ছেলে নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন বলছেন, তাদের রাজনৈতিক সাফল্যে ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি ‘মাফিয়া চক্র’ এবং আগামী ১৯ অক্টোবর চট্টগ্রামে চট্টগ্রাম আবাহনীর উদ্যোগে শুরু হতে যাওয়া তৃতীয় শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট বানচাল করতেই এসব অপপ্রচার ও প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে।

এ সব কিছুই পরিকল্পিত বলে দাবি করে তারা বলেন, জনগণই এর দাঁতভাঙ্গা জবাব দেবে। এতে তারা বিচলিত নন বলে জানান সামশুল হক চৌধুরী ও তার ছেলে নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন।

এর আগে, ২১ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেড ক্লাবসহ একযোগে তিনটি ক্লাবে র‌্যাব অভিযান চালায়। ‘খোঁজখবর না নিয়ে’ ঢালাওভাবে জুয়া ও ক্যাসিনো পরিচালনার অভিযোগে এমন অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে বলে দাবি করেন হুইপ সামশুল হক চৌধুরী। এতে ক্লাবের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে বলেও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে তিনি।

তার এমন বক্তব্য নিয়ে চট্টগ্রামের রাজনৈতিক অঙ্গনে বিতর্ক শুরু হয়। সপ্তাহজুড়ে চলে এসব বিতর্ক। এরই মধ্যে শুক্রবার চট্টগ্রামে আসেন হুইপ সামশুল হক চৌধুরী ও তার ছেলে আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা উপকমিটির সদস্য নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন। বিতর্কের মধ্যেও পটিয়া সংসদীয় এলাকার কয়েক হাজার মানুষ হুইপ ও তার ছেলেকে বরণে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভিড় করেন।

বিকেলে বিমানবন্দরে নামলে নানা বিতর্কিত বিষয় নিয়ে সাংবাদিকরা হুইপকে প্রশ্ন করেন। জাতীয় পার্টি ও বিএনপি হয়েই সামশুল হক চৌধুরী আওয়ামী লীগে এসেছেন- গণমাধ্যমকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে হুইপ সামশুল হক চৌধুরী বলেন, আমাকে জাতীয় পার্টি, বিএনপি, কমিউনিস্ট পার্টি- কত কিছুই বানানো হচ্ছে। এখনও জামায়াত বানানো হয়নি। আমার এলাকার আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতারা সবাই এখানে উপস্থিত আছেন, তারা জানেন। আপনারা তাদের জিজ্ঞেস করেন আমি কোথা থেকে কীভাবে এসেছি। আমি যদি এতই খারাপ হই তবে আওয়ামী লীগের প্রয়াত নেতা আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু আমাকে দলে নিতেন না। তা ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানেন আমার বিষয়টি।

সামশুল হক চৌধুরী আরও বলেন, মূলত একটি মাফিয়া চক্র স্বার্থসিদ্ধি করতে না পেরে আমার পেছনে লেগেছে। আমার বিরুদ্ধে একটি গোষ্ঠীর মিডিয়ায় ধারাবাহিকভাবে অপপ্রচার ও প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে। আমি এতে বিচলিত নই। জনগণই এসব অপপ্রচার ও প্রোপাগান্ডার দাঁতভাঙ্গা জবাব দেবে।

নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন বলেন, শেখ কামালের নামে আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে দু’বার। আগামী ১৯ অক্টোবর এই টুর্নামেন্ট তৃতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হবে। সব প্রস্তুতিও সম্পন্ন। আমার বাবার ‘ব্যবসায়িক শত্রু’ দিদারুল আলম চৌধুরীসহ ঈর্ষাপরায়ণ গুটিকয়েক মানুষ সে ফ বিরোধিতার স্বার্থে কিছু বক্তব্যকে বিকৃত করে সামনে এনে সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু এতে তারা সফল হবেন না।

এ বিষয়ে নগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক দিদারুল আলম চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, আমার সঙ্গে তার (হুইপ সামশুল হক চৌধুরী) কোনো ব্যবসায়িক বা জায়গা জমি নিয়ে শত্রুতা নেই। আবাহনীতে (চট্টগ্রাম আবাহনী ক্লাব) তার প্রশ্রয়ে জুয়া চলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
themesbatulpar4545
%d bloggers like this: