শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১৩ অপরাহ্ন

বাউল শিল্পী শাহ আব্দুল করিমের বার্ষিকী আজ

স্টাফ রিপোর্টার:
বাংলা বাউলগানের একজন কিংবদন্তি শিল্পী। সুনামগঞ্জের কালনী নদীর তীরে বেড়ে উঠা শাহ আব্দুল করিমের ১০ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ।

শাহ আব্দুল করিম সুনামগঞ্জ জেলার উজানধল দিরাইয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯১৬ সালে জন্ম গ্রহণ করেন এবং ১২ সেপ্টেম্বর, ২০০৯ সিলেট,সুনামগঞ্জ,দিরাই,উজানধলয় মৃত্যু বরণ করেন।

গান ভাটি অঞ্চলে জনপ্রিয় হলেও শহরের মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা পায় তার মৃত্যুর কয়েক বছর আগে। স্বশিক্ষিত বাউল শাহ আব্দুল করিম এ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ শতাধিক গান লিখেছেন এবং সুরারোপ করেছেন। বাংলা একাডেমীর উদ্যোগে তার ১০টি গান ইংরেজিতে অনূদিত হয়েছে। কিশোর বয়স থেকে গান লিখলেও কয়েক বছর আগেও এসব গান শুধুমাত্র ভাটি অঞ্চলের মানুষের কাছেই জনপ্রিয় ছিল। তার মৃত্যুর কয়েক বছর আগে বেশ কয়েকজন শিল্পী বাউল শাহ আব্দুল করিমের গানগুলো নতুন করে গেয়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করলে তিনি দেশব্যাপী পরিচিতি লাভ করেন। বাউলসাধক শাহ আবদুল জীবনের একটি বড় অংশ লড়াই করেছেন দরিদ্রতার সাথে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন সময় তার সাহায্যার্থে এগিয়ে এলেও তা তিনি কখনোই গ্রহণ করেননি। উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে সাউন্ড মেশিন নামের একটি অডিও প্রকাশনা সংস্থা তার সম্মানে জীবন্ত কিংবদন্তীঃ বাউল শাহ আবদুল করিম নামে বিভিন্ন শিল্পীর গাওয়া তার জনপ্রিয় ১২ টি গানের একটি অ্যালবাম প্রকাশ করে। এই অ্যালবামের বিক্রি থেকে পাওয়া অর্থ তার বার্ধক্যজনিত রোগের চিকি‍ৎসার জন্য তার পরিবারের কাছে তুলে দেয়া হয়। ২০০৭ সালে বাউলের জীবদ্দশায় শাহ আবদুল করিমের জীবন ও কর্মভিত্তিক একটি বই প্রথমবারের মতো প্রকাশিত হয়, ‘শাহ আবদুল করিম সংবর্ধন-গ্রন্থ’ (উৎস প্রকাশন) নামের এই বইটি সম্পাদনা করেন লোকসংস্কৃতি গবেষক ও প্রাবন্ধিক সুমনকুমার দাশ। শিল্পীর চাওয়া অনুযায়ী ২০০৯ সালের ২২ মে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ও খান বাহাদুর এহিয়া ওয়াকফ এস্টেটের মোতাওয়াল্লি ড. জাফর আহমেদ খানের উদ্যোগে বাউল আব্দুল করিমের সমগ্র সৃষ্টিকর্ম নিয়ে গ্রন্থ ‘শাহ আবদুল করিম রচনাসমগ্র’ প্রকাশিত হয়। বইটির পরিবেশক বইপত্র। শাহ আবদুল করিমের জনপ্রিয় কিছু গানঃ

বন্দে মায়া লাগাইছে, পিরিতি শিখাইছে

আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম

গাড়ি চলে না

রঙ এর দুনিয়া তরে চায় না

তুমি রাখ কিবা মার

ঝিলঝিল ঝিলঝিল করেরে ময়ুরপংখী নাও

তোমার কি দয়া লাগেনা

আমি মিনতি করিরে

তোমারও পিরিতে বন্ধু

সাহস বিনা হয়না কভু প্রেম

মোদের কি হবেরে ,

মানুষ হয়ে তালাশ করলে

আমি বাংলা মায়ের ছেলে

আমি কূলহারা কলঙ্কিনী

কেমনে ভুলিবো আমি বাঁচি না তারে ছাড়া

কোন মেস্তরি নাও বানাইছে

কেন পিরিতি বাড়াইলারে বন্ধু

মন মিলে মানুষ মিলে, সময় মিলেনা

সখী তুরা প্রেম করিওনা

কাছে নেওনা ,দেখা দেওনা

মন মজালে,ওরে বাউলা গান

আমার মাটির পিনজিরাই সোনার ময়নারে

নতুন প্রেমে মন মজাইয়া

বসন্ত বাতাসে সইগো

আইলায় না আইলায় নারে বন্ধু

মহাজনে বানাইয়াছে ময়ুরপংখী নাও

আমি তোমার কলের গাড়ি

সখী কুঞ্জ সাজাও গো

জিজ্ঞাস করি তোমার কাছে

যে দুংখ মোর মনে

হুরু থাকতে,আমরা কত খেইর (খেইল) খেলাইতাম

হাওয়াই উরে আমার

গান গাই আমার মনরে বুঝাই

দুনিয়া মায়ার জালে

দয়া কর দয়াল তোমার দয়ার বলে

আগের বাহাদুরি গেল কই

মন বান‍দিব কেমনে

আমার মন উদাসি

আমি তরে চাইরে বন্ধু

কাঙ্গালে কি পাইব তোমারে

বন্ধুরে কই পাব

এখন ভাবিলে কি হবে

আসি বলে গেল বন্ধু আইলনা

আমি কি করি উপায়

প্রান বন্ধু আসিতে কত দুরে

বন্ধু ত আইলনাগু সখী

আমি গান গাইতে পারিনা

খুজিয়া পাইলাম নারে বন্ধু

ভব সাগরের নাইয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
themesbatulpar4545
%d bloggers like this: