বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০৩:৩২ অপরাহ্ন

চাকরি পেলেন সন্তানের জন্য দুধ চুরি করা সেই বাবা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সন্তানের ক্ষুধার যন্ত্রণা মেটাতে বাধ্য হয়ে সুপার শপ থেকে দুধ চুরি করা সেই বাবাকে চাকরি দিয়েছে রিটেইল চেইন শপ ‘স্বপ্ন’ কর্তৃপক্ষ।

আজ রোববার দুপুরে খিলগাঁও সহকারী পুলিশ কমিশনারের (এসি) জাহিদুল ইসলামের কার্যালয়ে তাকে ডেকে চাকরির ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়।

গত শুক্রবার রাত পৌনে নয়টার দিকে সুপারশপ ‘স্বপ্ন’র খিলগাঁও শাখা থেকে দাম পরিশোধ না করে দুধের প্যাকেট নেওয়ার অভিযোগ ওঠে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এরপর তাকে পুলিশে সোপর্দ করলে পুলিশ কর্মকর্তা জানতে পারেন, পকেটে টাকা না থাকায় নিরুপায় হয়ে সন্তানের ক্ষুধা মেটাতে দুধের প্যাকেট নিয়েছিলেন ওই ব্যক্তি।

পরে বিষয়টি জেনে নিজেই দুধের দাম পরিশোধ করে ওই বাবাকে ছেড়ে দেন পুলিশ কর্মকর্তা। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এ ঘটনার বর্ণনা করে একটি পোস্ট দেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) খিলগাঁও জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম।

বিষয়টি ভাইরাল হলে স্বপ্নের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসিরের নজরে আসে। তার নির্দেশে ওই বাবা ও সন্তানের দায়িত্ব নেওয়ার পদক্ষেপ নেয় স্বপ্ন কর্তৃপক্ষ।

এসি জাহিদুল ইসলাম রোববার দুপুরে জানান, সন্তানের ক্ষুধার যন্ত্রণা সইতে না পেরে স্বপ্ন থেকে দুধ চুরি করেছিলেন যিনি তাকে ডেকে আনা হয়েছে। স্বপ্ন কর্তৃপক্ষকেও ডাকা হয়েছে। তার জন্য একটি চাকরির ব্যবস্থা করেছে স্বপ্ন কর্তৃপক্ষ।

তিনি বলেন, চাকরির নিয়োগপত্র ওই বাবাকে তুলে দিয়েছেন স্বপ্নের কর্মকর্তারা। তাকে অফিসে নিয়ে গেছে স্বপ্ন কর্তৃপক্ষ। সেখানে তার একটি ইন্টারভিউ নেওয়া হবে। এরপর তার যোগ্যতা অনুযায়ী পদ ও বেতন নির্ধারণ করবে স্বপ্ন।

এর আগে এদিন সকালে এসি জাহিদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ঘটনাটি ভাইরাল হওয়ার পর তিনি মোবাইল বন্ধ করে রেখেছেন। আমরা প্রযুক্তির সাহায্যে তাকে ট্রেস করে তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তিনি এক বাবার এক ছেলে, সম্ভ্রান্ত পরিবারের ছেলে। আত্মসম্মানবোধের কারণে তিনি আমাদের সঙ্গে দেখা করতে আসেননি। আমি তাকে নিশ্চিত করেছি যে গণমাধ্যমে তার নাম-পরিচয় সব গোপন রেখে একটা চাকরির ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে, পরে তিনি কথা দিয়েছেন- আজ দুপুরে আসবেন.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
themesbatulpar4545
%d bloggers like this: