মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ১২:৫২ অপরাহ্ন

শ্রীলঙ্কায় নিহত বেড়ে ৩৫৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৫৯ জনে দাঁড়িয়েছে। বুধবার শ্রীলঙ্কা পুলিশের মুখপাত্র রুয়ান গুনাসেকেরা এ তথ্য জানিয়েছেন বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। রোববারের হামলায় মারাত্মকভাবে আহত হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো কয়েকজনের মৃত্যু হয়েছে।

ইস্টার সানডের প্রার্থনার সময় দেশটির তিনটি গির্জা ও চারটি হোটেলসহ আট স্থানে আত্মঘাতী বোমা হামলা হয়। শ্রীলঙ্কার পুলিশ জানিয়েছে, হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আরও ১৮ জনকে আটক করা হয়েছে। এ নিয়ে আটকের সংখ্যা দাঁড়াল ৫৮।

এদিকে মঙ্গলবার এ হামলায় দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) । আইএসের বার্তা সংস্থা আমাক সাত জঙ্গির নাম প্রকাশ করে এরাই আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছে বলে জানিয়েছে। তবে এরা দাবির পক্ষে কোনো প্রমাণ দেয়নি।

এর আগে দেশটির চরমপন্থী ইসলামিক গোষ্ঠী ন্যাশনাল তাওহিদ জামায়াতকে হামলার জন্য দায়ী করে শ্রীলঙ্কা সরকার। তবে এর পেছনে আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্কের সহায়তা ছিল বলে দাবি করেন তারা।

এ বিষয়ে তদন্তে আন্তর্জাতিক সহায়তাও চেয়েছে কলম্বো সরকার। হামলার তদন্তে ইতোমধ্যে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোল। ইতোমধ্যে তারা একটি দল কলম্বোয় পাঠিয়েছে বলে জানিয়েছে প্যারিসভিত্তিক এই সংস্থাটি।

এছাড়া হামলার ঘটনার তদন্তে সহায়তা করার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এজন্য সে দেশের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থাকে (এফবিআই) দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

আত্মঘাতী বোমা হামলার দুই ঘন্টা আগে এ বিষয়ে কলম্বোকে সতর্ক করেছিল ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা। মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কা ও ভারতীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানায়।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা ‘২৪ ঘণ্টার মধ্য’ প্রতিরক্ষা বাহিনীগুলোর প্রধানদের পরিবর্তন করার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করে প্রতিবেদন দেওয়া হলেও সেগুলো তার সঙ্গে শেয়ার করা হয়নি। এজন্য দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ‘কঠোর পদক্ষেপ’ নেওয়ার অঙ্গীকার করেছেন তিনি।

জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেন, ‘আগামী সপ্তাহগুলোতে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীগুলোকে ঢেলে সাজানো হবে।

তিনি আরো বলেন, ‘নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বিদেশি একটি রাষ্ট্রের কাছ থেকে গোয়েন্দা প্রতিবেদন পাওয়ার পরও সেটি আমাকে জানাননি। এসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

প্রসঙ্গত, রোববার ইস্টার সানডে উদযাপনের সময় শ্রীলঙ্কায় দুই দফায় তিন গির্জা ও চারটি বিলাসবহুল হোটেলসহ আট জায়গায় বোমা হামলা হয়।

সকালে প্রথমে হামলার শিকার হয় ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের তিনটি বড় গির্জা সেইন্ট অ্যান্থনি চার্চ, সেইন্ট সেবাস্টিয়ান চার্চ ও জিয়ন চার্চ। ইস্টার সানডের প্রার্থনায় এসব চার্চে সমবেত হয়েছিলেন হাজারো মানুষ।

এছাড়া হামলা হয় কলম্বোর পাঁচ তারকা হোটেল শাংরি লা, কিংসবুরি ও সিনামন গ্র্যান্ড জোটেলে। এসব হোটেলে অনেক বিদেশি পর্যটক ছিলেন। পরে বিকেলে আরো দুটি হামলার ঘটনা ঘটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
themesbatulpar4545
%d bloggers like this: