সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

কিশোরগঞ্জে স্বামীর হাতে স্ত্রী কুপিয়ে হত্যা ॥ ঘাতক আটক

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি.
কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে এক পাষন্ড স্বামীর হাতে মোছাঃ প্রজ্ঞা আক্তার (২৫) নামে এক গৃহবধুকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে করিমগঞ্জ উপজেলার কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নের উত্তর চাঁনপুর গ্রামে এ মর্মান্তিক হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনাস্থল থেকে ঘাতক স্বামী মাতাব (৩৫)কে আটক করেছে পুলিশ। নিহত প্রজ্ঞা ইটনা উপজেলার মৃগা ইউনিয়নের পূর্বলাইমপাশা গ্রামের মো. আহসান মোস্তফার মেয়ে এবং করিমগঞ্জ উপজেলার উত্তর চাঁনপুর গ্রামের ইমাম উদ্দিন ব্যাপারী ওরফে দোলার বাপের ছেলে কুয়েত প্রবাসী দেলুয়ার হোসেন ওরফে মাতাবের স্ত্রী।
এলাকাবাসি ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত দেড় বছর পূর্বে করিমগঞ্জ উপজেলার উত্তর চাঁনপুর গ্রামের ইমাম উদ্দিন ব্যাপারী ওরফে দোলার বাপের ছেলে কুয়েত প্রবাসী দেলুয়ার হোসেন ওরফে মাতাবের সাথে ইটনা উপজেলার পূর্ব লাইমপাশা গ্রামের আহসান মোস্তফার মাস্টারের মেয়ে মাস্টার্স পরীার্থী প্রজ্ঞার বিয়ে হয়। বিয়ের নয় মাস পরে মাতাব আবার কুয়েতে চলে যায়। এক বছর তিন মাস পর তাদের সংসারে একটি মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়। তা শোনে বিদেশ থেকে সে আবার গ্রামের বাড়িতে চলে আসে। মেয়েটির বয়স তিন মাস।
এলাকাবাসি জানায়, মাতাব একজন কোরআনের হাফেজ বলে জানি। সে পাঁচ বছর ধরে কুয়েতে থাকে। সে এর আগেও দুইটি বিয়ে করে বউকে ডির্ভোস দিয়েছে বলে জানা গেছে। বিভিন্ন সময় প্রজ্ঞা ও মাতাব এ দুইজনের মাঝে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পারিবারিক ঝগড়া হতো শোনতাম। মাতাব প্রবাসে থাকা কালীন যত টাকা রোজগার করতো তা জোয়া খেলে উড়িয়ে দিতো বলে এলাকায় শোনা যেতো। এমনকি দেশে এসেও সে সর্বদায় জোয়া খেলা নিয়ে ব্যস্ত থাকতো।
অন্যদিকে কেউ কেউ বলছেন, মাতাব বিদেশ থাকা কালীন সময়ে প্রজ্ঞা পর মানুষের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলতো বলে শোনেছি। মাতাব বাড়িতে আসলে পরের সাথে ফোনে কথা বলা নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো।
নাম না প্রকাশ শর্তে প্রতিবেশী কয়েকজন জানান, ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার সকালে শোনি ঘটনার আগের দিন বুধবার দিবাগত গভীর রাত করে বাড়িতে আসে মাতাব। দুপুরে ঘুম থেকে উঠলে স্ত্রী গভীর রাতে বাড়িতে আসা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে থেমে থেমে ঝগড়া হয়। এ সময় তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটির হয়। এক পর্যায়ে ঘাতক মাতাব ঘরের দরজা বন্ধ করে ঘরে থাকা গরু জবাই করা ছুরি দিয়ে গৃহবধু প্রজ্ঞার মাতায় ও কান বরাবর কুপিয়ে ঘর থেকে পালিয়ে যায়। এ সময় প্রচুর রক্তকননে ঘটনাস্থলেই প্রজ্ঞা মারা যায়। এলাকাবাসি ঘটনা জেনে করিমগঞ্জ থানাকে খবর দিলে থানার ওসি মো. মুজিবুর রহমান ঘটনাস্থলে এসে ঘটনাস্থল থেকে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পার্শ্ববর্তী তিনশত গজ দুরে মাতাবের বড় ভাইয়ের বাড়িতে পালিয়ে থাকা মাতাবকে আটক করে।
নিহত গৃহবধু প্রজ্ঞার বাবা আহসান মোস্তফা বলেন, কোরআনের হাফেজ জেনে বিয়ে দেয়ার পর জানতে পারি প্রজ্ঞার স্বামী মাতাব একজন জোয়ারি। সে বিদেশ থেকে যা রোজগার করতো তা দেশে এসে জোয়া খেলে উড়িয়ে দিতো। তা নিয়ে আমার মেয়ের সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ হতো।
এদিকে ঘাতক মাতাবের বড় ভাই ফরিদ মিয়া জানায়, প্রজ্ঞা অন্যজনের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলতো নিয়ে প্রায়ই তাদের দুইজনের মধ্যে ঝগড়া হতো শোনতাম। হয়তো তা নিয়ে এমন ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।
করিমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুজিবুর রহমার বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একই গ্রামের তিনশত গজ দুরে তার বড় ভাইয়ের বাড়িতে পালিয়ে তাকা মাতাবকে আটক করতে সক্ষম হয়েছি। হত্যাকান্ড নিয়ে এলাকাবাসি একেক জনে একেক কথা বলছে তাই ঘটনা পুরো তদন্ত ছাড়া এ বিষয়ে এখনো কিছু বলা যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে থানায় মালার দায়ের করার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান ওসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
themesbatulpar4545
%d bloggers like this: