FaceBook twitter Google plus utube RSS Feed
  

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ - ৪:৫৯ অপরাহ্ণ

সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন জেলায় ঈদুল আজহা উদযাপিত

f3deccb199986c8cf516bfaecf6c5138-59a930972cd6e

x

তোলপাড় ডেস্ক
সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে বরিশালে কয়েক হাজার পরিবার, দিনাজপুরের ৫ উপজেলায়, লক্ষ্মীপুরে ১১টি গ্রামে, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লামাপাড়ায়, পটুয়াখালীতে ২৫ গ্রামে, টাঙ্গাইলে অর্ধশতাধিক পরিবারে ও মৌলভীবাজারে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে।

আমাদের বরিশাল প্রতিনিধি জানান, সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে বরিশালের কাদেরিয়া, চিশতিয়া, জাহঙ্গারিয়া তরিকার অনুসারী কয়েক হাজার পরিবার শুক্রবারে কোরবানির ঈদ উদযাপন করেছে। নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের টিয়াখালি তাঁজকাঠী দায়রা বাড়ি জামে মসজিদ, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের জিয়া সড়ক শাহ্সুফি মমতাজিয়া মসজিদ মাঠ প্রাঙ্গনে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদের নামাজের জামাত শুরু হয়।

চিশতিয়া তরিকার অনুসারী আবদুর রহমান মিয়া বলেন, তাদের মসজিদ ছাড়াও বাবুগঞ্জ উপজেলার, মাধবপাশা, কেদারপুর, নিশানবাড়িয়া, হাজি বাশকাটি, বাকেরগঞ্জ উপজেলার সুন্দর কাটিতে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এছাড়াও বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার ওলানকাঠী এলাকার সরোয়ার খলিফার বাড়ি, খানপুরায় জাহাঙ্গীর সিকদারের বাড়ি, কেদারপুরের মান্নান হাওলাদারের বাড়ি ও মাধবপাশার আমীর দুয়ারী বাড়ির জামে মসজিদ হিজলা-মুলাদী ও বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বেশ কয়েকটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহত্তর বরিশাল অঞ্চলে তাদের মতামতের অনুসারী ১২ হাজার পরিবারের প্রায় ৫০ হাজার সদস্য সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে শুক্রবারেই ঈদ উল আজহার নামাজ আদায় এবং পশু কোরবানি করেছেন বলে জানান ইউসুফ আলি।

ওই সব এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ঈদের আমেজ ছড়িয়ে পড়ে। শত শত মানুষ শুক্রবার ঈদের নামাজ আদায় করেন বলে জানা গেছে।

দিনাজপুর প্রতিনিধি জানান, দিনাজপুরের ৫টি উপজেলার প্রায় ২ হাজার পরিবার আজ পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপন করেছে। সকাল সোয়া ৮ টায় দিনাজপুর শহরের পার্টি সেন্টারে আয়োজিত ঈদের জামাতে ইমামতি করেন মাওলানা মতিউর রহমান।

এছাড়াও দিনাজপুরের সদর উপজেলার পাহাড়পুর, খানসামা উপজেলার পকেরহাট, বিরল উপজেলার বালান্দোর, কাহারোল উপজেলার জয়নন্দ ও মুকুন্দপুর এবং চিরিরবন্দর উপজেলার রাবারড্যাম এলাকায় আগাম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি জানান, লক্ষ্মীপুরে ১১টি গ্রামে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার সকাল ১০ টায় রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও বাজারের তালিমুন কোরান নুরানী মাদ্রাসা মাঠে সবচাইতে বড় ঈদের নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন মাওলানা আমিনুল ইসলাম।

এছাড়া জেলার রামগঞ্জ উপজেলার জয়পুরা, বিঘা, বারো ঘরিয়া, হোটাটিয়া, শরশৈই, কাঞ্চনপুর ও রায়পুর উপজেলার কলাকোপা ও সদর উপজেলার বশিকপুর গ্রামসহ ১১টি গ্রামে মাওলানা ইসহাক (রাঃ) অনুসারীরা স্ব স্ব ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লামাপাড়া শুক্রবার সকাল এগারোটায় লাম পাড়া শাহ সুফি মমতাজিয়া হাফেজ মাদ্রাসা ও এতিমখানায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

হানাফি মাজহাবের অনুসারীরা নারায়ণগঞ্জ, রুপগঞ্জ, ফতুল্লা, মুন্সিগঞ্জ, সাভার, কেরানীগঞ্জ গুলশান, পুরাতন ঢাকার বংশালসহ কয়েকশত মুসল্লি অংশ নেয়। নামাজ আদায় শেষে পশু কোববানি করা হয়।

পটুয়াখালী প্রতিনিধি জানান, পটুয়াখালীর ২৫ গ্রামের প্রায় ৩০ হাজার মুসলমান সৌদি আরবের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে কোরবানির ঈদ উদযাপন করছে। শুক্রবার সকাল ৯ টায় সদর উপজেলার বদরপুর দরবার শরীফে প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈদের জামাত পরিচালনা করেন হাফেজ ড. বাকী বিল্লাহ মেসকাদ চৌধুরী। সদর উপজেলার বদরপুর দরবার শরীফসহ কলাপাড়া, দশমিনা, গলাচিপা এবং বাউফল উপজেলার ২৫টি গ্রামে অনুরুপভাবে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

স্থানীয়ভাবে এরা চট্টগ্রামের এলাহাবাদ সুফিয়া এবং চানটুপির অনুসারী হিসাবে পরিচিত। চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার পীর মাওলানা মোহাম্মদ মোকলেসুর রহমানের অনুসারীরা প্রায় ৫০ বছর যাবত সৌদি আরবের সঙ্গে সংগতি রেখে রোজা, ঈদুল ফিতর, ঈদুল আযহাসহ ইসলাম ধর্মীয় যাবতীয় আচার অনুষ্ঠান পালন করে আসছেন।

টাঙ্গাইল সংবাদদাতা জানান, টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটি ইউনিয়নের শশীনাড়া গ্রামের অর্ধশতাধিক পরিবারে সৌদি আরব ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে মিল রেখে শুক্রবার পালন করা হচ্ছে পবিত্র ঈদুল-আযহা। সকাল ৮ টার সময় স্থানীয় মসজিদ প্রাঙ্গনে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

গত ৩ বছর ধরে তারা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে কোরবানি ঈদ করে আসছে। ঈদ জামাত শেষে তারা একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি ও কুশল বিনিময় করে। পরে পশু কোরবানি করা হয়। লাউহাটী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম ফিরোজ বিষয়টি নিশ্চত করেছেন।

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি জানান, জেলার শতাধিক পরিবারে ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে। মুসল্লি নামাজ শেষে দেশ ও জাতির উদ্দেশে মোনাজাত করা হয়। শুক্রবার সকাল সোয়া ৭টায় মৌলভীবাজার শহরের সার্কিট হাউস এলাকার আহমেদ শাবিস্তা নামক বাসার ছাদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

নামাজে বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত নারী ও পুরুষ অংশ নেয়। ইমামতি করেন হাফেজ মাওলানা মাজেদুল হক সজীব।

আব্দুল মাওফিক চৌধুরীর (পীর সাহেব উজান্ডি) অনুসারী হাফেয মাওলানা মাজেদুল হক সজীব জানান, ৯ বছর ধরে তারা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখেই ঈদুল ফিতর ও ঈদ উল আযহার নামাজ আদায় করছেন।

print