FaceBook twitter Google plus utube RSS Feed
  

১৪ জুলাই, ২০১৬ - ১১:৫৮ পূর্বাহ্ণ

নালায় পড়ার ১৯ ঘণ্টা পর শিশুর লাশ উদ্ধার

Sanjida1468473889

x

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর মহাখালীতে পয়োনিষ্কাশনের নালায় পড়ার ১৯ ঘণ্টা পর শিশু সানজিদা আক্তারের (৬) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

গতকাল বুধবার বেলা ৩টার দিকে খেলার সময় নালার পানিতে ডুবে যায় সে। রাত ১টা পর্যন্ত তাকে খুঁজে না পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযান স্থগিত করে। পরে আজ সকাল পৌনে ৮টা থেকে আবারও উদ্ধার অভিযান শুরু করে ফায়ার সার্ভিস।

ফায়ার সার্ভিসের সহকারী উপপরিচালক আনোয়ার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আজ সকাল পৌনে ৮টা থেকে শিশুটিকে উদ্ধারে অভিযান শুরু হয়। অভিযান শুরুর দুই ঘণ্টার মধ্যে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। শিশুটি নালার ঠিক যেখানে পড়ে গিয়েছিল, তার থেকে কিছু দূরে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার মরদেহ ময়লায় আটকে গিয়েছিল।

শিশু সানজিদার বাবার নাম শাহ আলম। পেশায় ভ্যানচালক শাহ আলম পরিবার নিয়ে ওই এলাকার ৭৩/১২, রিপন মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন। শাহ আলমের বাড়ি ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে। অনেক আগে থেকেই তারা ঢাকায় এসেছেন। রুবেল, রাসেল ও শান্তা নামে আরো তিন সন্তান রয়েছে শাহ আলমের। চার সন্তানের মধ্যে সানজিদা সবার ছোট।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার দুপুরে অপর এক শিশু তামিমের সঙ্গে খেলতে যায় সানজিদা। হঠাৎ করে সে ঝিলের ময়লাযুক্ত নালায় তলিয়ে যায়। পরে তামিমই দৌড়ে এসে সানজিদার বাসায় খবর দেয়।

স্থানীয়রা আরো জানান, ময়লা জমে থাকা এ নালাটি ১০-১২ ফুট গভীর। নালাটির নিচে পাকা থাকলেও তার ওপরে প্রায় দুই থেকে আড়াই ফুট পর্যন্ত ময়লার স্তূপ রয়েছে। মহাখালী বাস টার্মিনালের পেছনের এই নালাটি নিকেতন হয়ে সরাসরি রামপুরা ব্রিজের কাছে গিয়ে মিশেছে। ২০১২ সালের শেষ দিকে পয়োনিষ্কাশনের জন্য এ নালা তৈরি হয়।

এলাকাবাসী জানান, পয়োনিষ্কাশন নালাটির মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে নিকেতন পর্যন্ত কোনো ঢাকনা ছিল না। ঢাকনা থাকলে এই দুর্ঘটনা ঘটত না।

print