FaceBook twitter Google plus utube RSS Feed
  

৬ অক্টোবর, ২০১৫ - ১০:০২ অপরাহ্ণ

ঝুঁকি নিয়েই চলছে ট্রেন, যে কোন মূর্হুতে দুর্ঘটনার আশঙ্কা

x

B-

রিটনমো: জয়নাল আবেদিন রিটন,ভৈরব থেকে: ভৈরব-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ দীর্ঘ প্রায় ১২৫ কি.মি. রেল লাইনের অধিকাংশ স্থানেই পাথর না থাকায় প্রতিদিনই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে আন্তঃনগর, লোকাল ও মালবাহী বেশ কয়েকটি ট্রেন। এ অবস্থায় ট্রেন চলাচলে যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে মারাত্মক দুর্ঘটনা। এ দীর্ঘ রেলপথে বেশীরভাগ অংশেই স্লিপারের উপর পাথরের কোন অস্তিত্ব নেই বললেই চলে। এমনকি কোন কোন স্লিপারের ফাঁকে ফাঁেক গজিয়েছে গণ আকারে ঘাস। সামান্য বৃষ্টি হলেই কোথাও দেখা গেছে রেল লাইনের স্লিপার ডুবে গিয়ে নষ্ট হয়ে পড়েছে। এতে প্রতিদিন ঢাকা-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহে চলাচলকারী লক্ষাধিক যাত্রীর জীবনের ঝুঁকি নিয়েই এসব ট্রেনে চলছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভৈরব রেলওয়ে জংশন ষ্টেশনের অদূরে জগন্নাথপুর এলাকায় দীর্ঘ প্রায় কয়েক কি.মি রেলপথের অধিকাংশ স্থানেই পাথর নেই। অধিকাংশ যায়গায় হালকা বৃষ্টিতেই পানি জমে স্লিপার ডুবে পচন ধরেছে। কোথাও পাথর নেই স্লিপারও নেই। এমন অবস্থা থাকার পরও মেরামতের কোন উদ্যোগ নেই কর্তৃপক্ষের।

রেলপথের পার্শ্ববর্তী বসবাসকারি বেশ কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা বলেন, ছিচকে চোর ও মাদকসেবীরা রেল রাইনের নাট বল্টু খুলে নিয়ে যাওয়ার ফলে রেল রাইনের এমন নাজুক অবস্থা হয়েছে।
এলাকার বাসিন্দা সালেহা বেগম জানায়, মা-বাপ ছাড়াই দিন কাটছে যেন এই রেল লাইনের। রেল লাইনে বিশিরভাগ নাট-বল্টু ডিলা হয়ে গেছে। দিনের বেলা যেমন তেমন, রাতের বেলা ঘুমোতেও পারছি না ট্রেনের লক্কর জক্কর আওয়াজে। মাঝে মধ্যে ট্রেনের অস্বাবাবিক উচ্চ শব্দে মনে হয় ট্রেন লাইন ছাড়াই বুঝি চলছে। ভৈরব-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ দীর্ঘ এ রেল লাইনের অধিকাংশ জায়গাই এমন সমস্যা হয়েছে। যা দেখার কেউ নেই।

ভৈরব জি আর পি থানার অফিসার ইনচার্জ মো ঃ সাইদুল ইসলামের কাছে এমন অবস্থার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভৈরব থেকে ময়মনসিংহ রেল পথের সরারচর রেল ষ্টেশন পর্যন্ত ভৈরব রেলওয়ে থানার আওতাধীন। এর মধ্যে রেল লাইনের নাট,বল্টু ও স্লিপার চুরি কিংবা ক্ষতি সাধনের অভিযোগ পেলে আমরা তাৎক্ষনিক আইনানুগ ব্যবস্থা নেই।

এব্যাপারে নরসিংদীর উর্ধ্বতন উপ-সহাকারি প্রকৌশলী অফিসের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের তুলনায় কম গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় ভৈরব-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রেলপথটি দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত রয়েছে। তবে তা উপরস্থ কর্মকর্তাদের নজরে আসার জন্য প্রয়োজনে সমস্যার কথা আবারো আমরা জানাবো।

রেলপথটির দায়িত্বে থাকা ভৈরব রেল জংশনের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী সৌরভ দাস বেহাল দশার দায় স্বীকার করে বলেন, ইতিমধ্যে আমরা বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপকে লিখিতভাবে জানিয়েছি। আশা করি বিষয়টি স্বল্প সময়ে সমস্যার সমাধান হবে।

কিশোরগঞ্জ স্টেশন মাষ্টার জয়ন্ত কুমার মজুমদার বলেন, আমরা আমাদের উপরের মহলের অফিসারদের সমস্যার বিষয়টি জানিয়ে রেখেছি। আমরা আশা করি খুব দ্রুত সম্ভব এ সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।

print